বাংলাদেশীদের ভারত ভ্রমণে নতুন শর্ত বেধে দিল ভারতের সরকার

বাংলাদেশের প্রতিবেশি দেশ ভারতে ভ্রমণ করতে হলে খুব বেশি জটিলতার সম্মুখীন হতেন না বাংলাদেশের ভ্রমণকারীরা। চিকিৎসা, ব্যবসায়ী কিংবা ঘুরতে যাওয়ার ক্ষেত্রে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যেই ভারতে যেতে পারতেন বাংলাদেশের মানুষ।

তবে এবার ভারত ভ্রমণে এসেছে বেশ কিছু নতুন শর্তাবলি। নতুন এই শর্তাবলি মানতে তবেই কেবল ভারতে ভ্রমণ করতে পারবেন বাংলাদেশীরা।

মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে বর্তমানে গোটা বিশ্বেই ভ্রমণের ক্ষেত্রে এসেছে বেশ কিছু পরিবর্তন। সেই পালে হাওয়া লাগিয়ে ভারতও নতুন কিছু শর্তারোপ করেছে দেশটিতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে।

এখন ভারতে ভ্রমণ করতে হলে বাংলাদেশের নাগরিকদেরকে পাসপোর্ট সহ প্রথমে যেতে হবে ভারতীয় হাইকমিশনে। শুধু পাসপোর্টই নয় ভ্রমণকারীর সাথে থাকতে হবে করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেটও।

করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট সাথে নেয়ার ক্ষেত্রেও শর্ত রয়েছে। ভ্রমণকারীর করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেটটি অবশ্যই থাকতে হবে সর্বোচ্চ ৭২ ঘন্টার পুরনো।

অর্থাৎ করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট যদি ৭২ ঘণ্টার চেয়ে বেশি পুরনো হয় তাহলে তা কোনো কাজে আসবে না।

এছাড়াও ১ জুলাইয়ের পর যে ভিসা ইস্যু করা হয়েছে সেই ভিসা অবশ্যই জমা দিতে হবে।

একজন বাংলাদেশী যদি এই সকল শর্ত পূরণ করতে পারেন তবেই ভারতে ভ্রমণের সুযোগ পাবেন যেকোন বাংলাদেশী নাগরিক। অন্যথায় ভারত ভ্রমণের কোনো সুযোগ দেয়া হবে না।

অন্যদিকে ভারত থেকেও যদি কোনো নাগরিক বাংলাদেশে আসতে চান তাহলেও তাকে ইস্যু করতে হবে করোনা নেগটিভ সার্টিফিকেট।

পাসপোর্ট ভিসার পাশাপাশি করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট সহ থাকতে হবে ভারতের রাষ্ট্রমন্ত্রকের অনুমতিপত্র। আর এই করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট ইস্যু করতে হবে অবশ্যই রিপোর্ট হাতে পাওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে।

বাংলাদেশে যেসকল ভারতীয় নাগরিক আটকে পড়েছেন তাদের ভ্রমণের ক্ষেত্রেও একই শর্ত প্রযোজ্য হবে।

উল্লেখ্য, মহামারী করোনার কারনে গত ১৩ মার্চ বাংলাদেশী পাসপোর্টধারী নাগরিকদের ভারতে ভ্রমণের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এরপর ভারতের সাথে পণ্য আমদানি-রপ্তানী চালু হলেও ভ্রমণকারীদের যাতায়াতে জুড়ে দেয়া হয়েছে শর্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *